জীবন বদলে ফেলুন নিয়মিত অভ্যাসে

সাফওয়ানা জাবীন

প্রকাশ: ২১ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৩৬ এএম

দিনের শুরুটা যদি ভালো হয়, তবে পুরো দিনটাই ভালো যাবে। এ কথা অনেকেই মানেন ও সেই অনুসারে কাজ করেন। কেননা প্রতিটি নতুন দিন প্রত্যেকের জন্য নতুন নতুন সুযোগ নিয়ে আসে। সুযোগগুলোর সঠিক ব্যবহার করতে হবে। 

জীবনের লক্ষ্য অর্জনের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। আর সে লক্ষ্যে পৌঁছানোর সেরা উপায় হলো- দিনটি সঠিকভাবে শুরু করা। কারণ দিনের শুরুই সারাদিনের সবচেয়ে শক্তিশালী অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। 

স্বভাবতই এখন প্রশ্ন আসবে, দিনের শুরুটা কীভাবে করবেন? সকালে কিছু ছোট ছোট অভ্যাস দিনটিকে শক্তিশালী করে তুলতে পারে। চলুন জেনে নিই সেসব অভ্যাসগুলো সম্পর্কে।

বিছানা গোছানো

এটা অনেকের কাছে বিরক্তিকর হলেও সকালে ঘুম থেকে উঠে বিছানা গোছানো কতটা জরুরি, তা হয়তো অনেকেই জানে না। সকালে বিছানা গোছানোই আপনাকে সারাদিন সংগঠিত রাখতে সহায়তা করবে। জেনে অবাক হবেন, সকালে বিছানা গোছালে আপনার গোটা দিনটিও গোছানো হবে। হয়তো এটি আপনার কাছে সাধারণ গৃহস্থালির কাজ মনে হতে পারে, কিন্তু এর একটি মনস্তাত্ত্বিক দিক রয়েছে। সকালে ঘুম থেকে উঠে আপনি আপনার বিছানা গোছানোর পর মানসিক তৃপ্তি পাবেন এবং আপনার কাছে মনে হবে, দিনের প্রথম কাজটি শেষ করে ফেলেছেন।

পানি পান

পানির অপর নাম জীবন। আমাদের শরীর ভালো থাকার জন্য যথেষ্ট পানির প্রয়োজন। তাই সকালের শুরুটা হোক পানি দিয়েই। সকালে খালি পেটে এক গ্লাস পানি পান করলে শরীর থেকে সব ধরনের টক্সিন বের হয়ে যায়। ঠান্ডা, গরম কিংবা লেবুপানি- যেটাই হোক না কেন, পানি আপনাকে পান করতেই হবে। সকালে কমপক্ষে দুই গ্লাস পানি পান করলে নিজের কাছেই মনে হবে যেন অফুরন্ত শক্তি সঞ্চার হয়েছে শরীরে।

শরীরচর্চা

প্রতিদিন সকালে একটুখানি শরীরচর্চা আপনাকে প্রাণবন্ত করে তুলবে। যে ধরনের শরীরচর্চাই করুন না কেন, সেটাই আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তাই শরীরকে সুস্থ ও স্বাস্থ্যকর রাখার জন্য সকালে কিছুটা সময় বের করুন শরীরচর্চায়। সকালে শরীরচর্চা কিংবা শারীরিক পরিশ্রম যেটাই হোক না কেন, তা শরীর থেকে সুখী হরমোন নিঃসৃত করতে সহায়তা করে। 

কাজের তালিকা তৈরি

সারাদিন কী-কী কাজ করবেন, তার একটা তালিকা তৈরি করে নেয়ার অভ্যাস তৈরি করুন। এতে আপনার সময় যেমন বাঁচবে তেমনি সময়মতো কাজটা করতে পারবেন। আগের দিনের জমে থাকা কাজ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন। তাহলে কোনো কাজই বাদ যাবে না। এভাবে রুটিন তৈরি করে কাজ করলে কাজ অনেক সহজ হবে।

ফোনকে না বলুন

সকালে ঘুম থেকে উঠেই ফোন হাতে নেবেন না। এমন অভ্যাস যদি আপনার থেকে থাকে, তবে তা আজই বদলে নিন। কারণ এই অভ্যাস আপনার সারাদিনের কাজে ব্যাঘাত ঘটাবে। যদিও এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, মোবাইল ফোন সত্যিই আমাদের জীবনকে সহজ করে তুলেছে এবং এটি ছাড়া চলার কথা আমরা কল্পনাও করতে পারি না। তবুও সকালে ফোন দেখা বন্ধ করুন ও সকালটা নিজেকে সময় দিন ও মন শান্ত রাখুন। কয়েক ঘণ্টা ফোন থেকে দূরে থাকা এমন কিছু কঠিন কাজ নয়।

নিজেকে তৈরি করুন

দিনের শুরুটাই হ-য-ব-র-ল করে ফেলবেন না। খবরের কাগজ পড়া, কাপড় ইস্ত্রি করা, গোসল করা, রুটিন করে নিন কোনটার পরে কোনটা করবেন। এসব ঠিক করতে অনেকেই হিমশিম খেয়ে যায়। তাই সকালে কীভাবে নিজেকে তৈরি করবেন তার একটি রুটিন তৈরি করুন, না হলে সমস্যায় পড়বেন। এটি কেবল সময়ই সাশ্রয় করবে না, পাশাপাশি আপনাকে সুশৃঙ্খল হতে সহায়তা করবে।

নাশতা করুন

সকালে নাশতা করার অভ্যাস অনেকেরই নেই। ফলে দিনটি ভালো যায় না। কারণ সকালে নাশতা করার সাথে দিনটা ভালো যাওয়ার সম্পর্ক আছে। সকালে খালি পেটে ঘর থেকে বের হওয়া উচিত নয়। এতে কর্মস্পৃহা কমে যায়। তাই প্রতিদিন সকালে ভালো করে পুষ্টিকর খাবার দিয়ে নাশতাটা করে ফেলুন। দেখবেন দিনটা ভালো যাবে। আপনি যা পছন্দ করেন তাই খান; কিন্তু অতিরিক্ত খেয়ে ফেলবেন না; এতে আপনার ঘুম পাবে এবং অলস বোধ করবেন।

প্রধান সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ | প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

অনলাইন সম্পাদক: আরশাদ সিদ্দিকী | ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Design & Developed By Root Soft Bangladesh