রোববার,  ২৫ আগস্ট ২০১৯  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ২৬ জুলাই ২০১৯, ১৭:৩৬:২০

নিকলীর হাওরে

ভ্রমণ ডেস্ক
কর্মব্যস্ততা থেকে ছুটি নিয়ে একদিন যদি ঘুরে আসা যায় দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশির মেলা থেকে তাহলে কেমন হয় বলুন তো? ঢাকা থেকে মাত্র দেড় দুই ঘণ্টার দূরত্বে কিশোরগঞ্জে অবস্থিত নিকলীর হাওরে আপনি পেতে পারেন জলরাশির খেলা, নৌকায় ঘুরে বেড়ানো, দ্বীপের মতো ভেসে থাকা ছোট ছোট গ্রাম এবং স্বচ্ছ জলের দেখা। নিকলীর হাওর কিশোরগঞ্জ সদর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে নিকলী উপজেলায় অবস্থিত।
নিকলীর হাওরে ট্রলার কিংবা নৌকায় আপনি ঘুরে বেড়াতে পারবেন। মাথার উপর খোলা আকাশ আর জলের উপর নৌকায় ঘুরে বেড়ানোর আনন্দই আলাদা। জলের উপর ঘুরতে ঘুরতে ক্লান্ত হয়ে গেলে আপনি নৌকা থামিয়ে ঘুরে আসতে পারবেন ছোট ছোট গ্রামের ভেতর থেকে। এখানকার মানুষের সারল্য, আচরণ ও কথাবার্তায় আপনি মুগ্ধ হবেন। গ্রামের বাজার থেকে নাস্তা কিনে নৌকায় বসে বসে খেতে পারবেন। নৌকায় ঘুরতে ঘুরতে দেখতে পাবেন জেলেদের মাছ ধরার ব্যস্ততা। নিকলীর হাওরে ঘুরতে যাওয়ার আগে খেয়াল রাখবেন হাওর যেন উত্তাল না থাকে। প্রাকৃতিক আবহাওয়া বৈরি হলে না বেরোনোই ভালো। ভরা বর্ষায় যখন পানিতে ভরা থাকে তখন হাওড় দেখতে অনেক মনোমুগ্ধকর লাগে।  
 
যেভাবে যাবেন
ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে নিকলীর সরাসরি বাস আছে। আবার সায়েদাবাদ থেকে কিশোরগঞ্জের বাসে গিয়ে কালিয়াচাপরা সুগার মিল এলাকা থেকে টেম্পুতে কিংবা সিএনজিতে নিকলী হাওরের সামনেই নামা যাবে। সময় লাগবে তিন থেকে সাড়ে তিন ঘণ্টা।
তাছাড়া ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জগামী ট্রেনে সরারচর কিংবা মানিকখালি ষ্টেশনে নেমে সিনজি দিয়ে যেতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা।
নদীর ঘাটে গিয়ে বিভিন্ন আকারের ইঞ্জিনচালিত নৌকা ভাড়া করতে পারেন বা মসিয়াপুর বাজারের নজরুল সাউন্ডে আগে থেকেই চুক্তি করে নিতে পারেন।
 
যেখানে থাকবেন
নিকলীতে কোনো আবাসিক হোটেল নেই। রাতে থাকতে চাইলে কিশোরগঞ্জে থাকতে হবে। কিশরগঞ্জে রয়েছে গাঙচিল, শ্রাবণী আর আল-মুসলিমের মতো উন্নত হোটেল। চাইলে এই হোটেলগুলোর একটিতে থাকতে পারবেন। নিকলী থেকে ফেরার পথে নতুন বাজার থেকে টাটকা মাছও নিয়ে আসতে পারেন।

 

এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com