কেজিতে ৭০ টাকা কমেছে পেঁয়াজের দাম

রাজধানীসহ সারা দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। গত দুই দিনের ব্যবধানে পাইকারি বাজারে দাম কমেছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। দেশি পেঁয়াজ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়। আমদানি করা চায়না পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকায়। 

পেঁয়াজ ব্যবসায়ী ও সংশ্লিষ্টরা জানান, এরই মধ্যে বাজারে নতুন দেশি পেঁয়াজ উঠতে শুরু করেছে। চড়া দামের কারণে ঘরে ঘরে এখন পেঁয়াজের ব্যবহার কমে গেছে। এতে বাজারগুলোতে ক্রেতার সংখ্যা অনেক কম। এ কারণে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমে গেছে। দাম কমার এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বাজার স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

সোমবার রাজধানীর অন্যতম পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা দরে। মিসর ও মিয়ানমারের পেঁয়াজ কেজি প্রতি ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। 

পুরান ঢাকার পাইকারি বাজার শ্যামবাজারে পেঁয়াজের দাম আরো কমেছে। এ বাজারে পাইকারি দরে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে মানভেদে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। দুই দিন আগেও এর দাম ছিল ২১০ থেকে ২৩০ টাকা। নতুন দেশি পেঁয়াজ ১১০ থেকে ১২০ টাকা। আমদানি করা চায়নার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১১০ টাকা।

শ্যামবাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলেন, দেশি নতুন পেঁয়াজ বাজারে উঠেছে। এ পেঁয়াজ পাইকারিতে ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া সরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে। এসব পেঁয়াজের চালান দেশে এলে দাম আরো কমে যাবে।

এদিকে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কমলেও এখনো পুরোপুরি প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে। রাজধানীর মতিঝিল, খিলগাঁও, মুগদা, সেগুনবাগিচা, ধানমন্ডি এলাকার বাজারগুলোতে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ২২০ টাকা। আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা।

এছাড়া ক্রেতা না থাকায় চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দামও কমতে শুরু করেছে। সোমবার মিয়ানমার থেকে আমদানি হওয়া পেঁয়াজ কেজি প্রতি ১৩০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এক দিন আগে রবিবার বিকেলে তা ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। 

পাইকারি বাজারে কমলেও খুচরায় এখনো ২০০ টাকার বেশি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বিক্রেতারা জানান, তারা বেশি দরে পেঁয়াজ কিনেছেন। পাইকারিতে দাম কমায় খুচরায়ও এক-দুদিনের মধ্যে দাম কমবে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, পেঁয়াজের আড়ত, মোকাম, পাইকারি ও খুচরা বাজারে অভিযানের পাশাপাশি সরকার পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। এসব কারণে দাম কমেছে। পেঁয়াজের দাম সহনীয় পর্যায়ে না আসা পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh