শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গোতাবায়া রাজাপাকসের জয়

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গোতাবায়া রাজাপাকসে জয়ী হয়েছেন। ছবি: এএফপি

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গোতাবায়া রাজাপাকসে জয়ী হয়েছেন। ছবি: এএফপি

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী গোতাবায়া রাজাপাকসে বিজয়ী হয়েছেন। তিনি দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসের ভাই।

দেশটিতে ইস্টার সানডের দিন হামলায় ২৬৯ জন নিহত হওয়ার সাতমাস পর শনিবার তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

গোতাবায়ার মুখপাত্র খেইলিয়া রামবুকওয়েলা বলেন, ‘আমরা ৫৩ থেকে ৫৪ শতাংশ ভোট পেয়েছি। এর মানে বিজয় সুস্পষ্ট। আমরা খুবই খুশি গোতাবায়া পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন।’

নির্বাচনের ফল বেরুনোর পর গোতাবায়া এক টুইটে জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে বলেন, শ্রীলঙ্কার ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষ এই নতুন যাত্রার সাথী।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবাসন মন্ত্রী সাজিথ প্রেমাদাসা পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছেন পেয়েছেন ৪৫ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট। বামপন্থী অনুরা কুমারা দেশনায়েক তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন, তিনি পেয়েছেন ৪.৬৯ শতাংশ ভোট।

নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান মাহিন্দা দেশপ্রিয় বলেছেন, বিচ্ছিন্ন সহিংস ঘটনায় অনেক লোক আহত হওয়া সত্ত্বেও শনিবারের ভোটে ১৫ দশমিক ৯৯ মিলিয়ন ভোটারের মধ্যে ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

গোতাবায়া প্রতিরক্ষামন্ত্রী থাকার সময় তামিল বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহীদের যেভাবে দমন করেছিলেন তা নিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছিল। তাকে নিয়ে শ্রীলঙ্কার মুসলিমদের মধ্যেও ভয়-উদ্বেগ আছে। তারপরে একজন বিতর্কিত রাজনীতিবিদ হয়েও কেন বিজয়ী হলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গোতাবায়া সিংহলী সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকায় বেশি ভোট পেয়েছেন, অন্যদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী সাজিথের জনপ্রিয়তা ছিল সংখ্যালঘু তামিল ও মুসলিমদের মধ্যে।

গোটাবায়া রাজাপাকসে শ্রীলঙ্কার বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিংহলিদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয়। তার ভাই মাহিন্দা রাজাপাকসে প্রায় ১০ বছর শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ছিলেন এবং দেশটিতে তামিলদের সঙ্গে গৃহযুদ্ধ অবসানের কৃতিত্ব দেয়া হয় তাদের। সে সময় গোটাবায়া ছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। তামিল বিচ্ছিন্নতাবাদীদের যেরকম কঠোর ও নিষ্ঠুরভাবে তিনি দমন করেছিলেন, সে জন্য তিনি বেশ বিতর্কিত।

রাজপাকসে ভাইয়েরা প্রেসিডেন্ট ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী থাকার সময় কয়েক দশকব্যাপি চলা তামিল টাইগার বিদ্রোহ দমন করা হয় এবং এই যুদ্ধে সব মিলিয়ে এক লাখ লোক নিহত হয়েছিল। 

তাছাড়াও ২০০৫ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে সরকার-সমালোচক সাংবাদিক হত্যা, নির্যাতন, তামিলসহ হাজার হাজার মানুষের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা ঘটে।

তাদের বিরুদ্ধে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনেরও অভিযোগ উঠে। কিন্তু গোতাবায়া বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এটিকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেন। এবারের নির্বাচনি প্রচারাভিযানেও গোতাবায়া নিরাপত্তার বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

তার বিজয়ে শ্রীলঙ্কার সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিরা বেশ উৎফুল্ল। এদিকে মুসলিমরা আশংকা করেছিলেন, গোতাবায়া নির্বাচনে জয়ী হলে সহিংসতা ও বর্ণবাদ বেড়ে যাবে। -এএফপি ও বিবিসি

মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh