ব্যস্ততায় ক্লান্তি নেই: হৃদি হক

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

অভিনেত্রী, নির্দেশক। মঞ্চ, ছোট পর্দা ও বড় পর্দায় কাজ করছেন নিয়মিত। হৃদি হকের সঙ্গে সাম্প্রতিক সময়ের বিভিন্ন কাজ নিয়ে কথা বলেছেন মাহমুদ সালেহীন খান...

সাম্প্রতিক সময়ে কি নিয়ে ব্যস্ত?
হৃদি হক: ব্যস্ততা একটু মাত্রাতিরিক্তই বলা যায়। তবে, আমার প্যাশনই আমার কাজ বলে এত ব্যস্ততায়ও ক্লান্তি নেই। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের অনুদানে এবার ছবি নির্মাণের দায়িত্ব পেয়েছি আমি। আমার নির্মাণে প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র মুক্তিযুদ্ধের পটভূমির গল্পে ‘১৯৭১ সেইসব দিন’; এর প্রি-প্রোডাকশনের কাজে ব্যস্ততায় সময় কাটছে। ব্যস্ততার আরেকটা অংশে আছে- আমার নির্দেশনায়, ড. রতন সিদ্দিকীর রচনায়, নাগরিক নাট্যাঙ্গনের নতুন প্রযোজনার কাজ। এ ছাড়া, আমাদের প্রযোজনা সংস্থা ‘টিকিট’ এর ডিরেক্টর (ক্রিয়েটিভ) হিসেবে আমাকে দিনের অনেকটা অংশ সময় দিতে হয়। 

মঞ্চের ব্যস্ততা কি যাচ্ছে?
হৃদি হক: নতুন প্রযোজনার রিহার্সেলের সঙ্গে সঙ্গেই নিয়মিত শো চলছে- গহর বাদশা ও বানেছা পরী, ক্রীতদাসের হাসি আর ’৭১ ও একজন নাট্যকার এর। আর নাগরিক নাট্যাঙ্গনের থিয়েটার স্কুল নাগরিক নাট্যাঙ্গন ইনস্টিটিউট অব ড্রামার কাজ চলে বছরব্যাপী। 

ছোট পর্দার কাজ নিয়ে জানতে চাই?
হৃদি হক: আমাদের প্রযোজনা সংস্থা ‘টিকিট’ এর প্রযোজনায়, কামরুজ্জামান রনির পরিচালনায় ধারাবাহিক নাটক ‘রূপ’ পোস্ট-প্রোডাকশনের কাজ চলছে; এ ছাড়াও ডিরেকটরস গিল্ডের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হওয়ায়, সংগঠনের কাজে বেশ বড় একটা সময় ব্যস্ত থাকতে হয়।

অভিনয় আর নির্দেশনা কোনটাকে বেশি গুরুত্ব দেন?
হৃদি হক: নির্দেশক স্বপ্ন দেখেন, ছবি আঁকেন যত্ন করে, নির্দিষ্ট একটি লক্ষ্যে হাত ধরে নিয়ে যান প্রযোজনাকে; অভিনেতা এবং প্রযোজনা সংশ্লিষ্ট সবাই ধারণ করেন সেই স্বপ্ন, অহর্নিশি কায়মনোবাক্যে লালনে-পালনে মঞ্চ-বাস্তবতায় রূপ প্রকাশ ঘটায় তার। গুরুত্বের ভাবনায় এরা একে অন্যের পরিপূরক।

নির্দেশক হিসেবে নিজেকে কোন পর্যায়ে দেখতে চান?
হৃদি হক: দর্শকের অনুভূতির কুঠিতে। তার উন্নত চিন্তা-ভাবনা-মননের গঠনের চলমান যে প্রক্রিয়া, সেখানে; ক্যাটালিস্ট হয়ে- কাজ দিয়ে।


মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh