শুক্রবার,  ২৩ আগস্ট ২০১৯  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ১৫ জুলাই ২০১৯, ১৩:১৮:১৫

জাতিসংঘে প্রদর্শিত রোহিঙ্গাদের নিয়ে চলচ্চিত্র ‘জন্মভূমি’

ডেস্ক রিপোর্ট
যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযানে বাস্তুচ্যুত হয়ে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের ওপর নির্মিত চলচ্চিত্র ‘জন্মভূমি’ প্রদর্শন করা হয়েছে। জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের আয়োজনে গত মঙ্গলবার এ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়।
এতে সহ-আয়োজক ছিল কেনিয়া ও জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশন (ইউএনএইচসিআর)।
কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রিত অন্তঃস্বত্ত্বা রোহিঙ্গা নারী সোফিয়ার নিজ জন্মভূমি মিয়ানমারের রাখাইনে ফিরে যাওয়ার আকুতি এবং আগত সন্তানকে জন্মভূমি ছাড়া অন্য কোথাও জন্ম না দেয়ার তীব্র আকাঙ্ক্ষা ও দৃঢ়তা ফুটিয়ে তোলা হয় চলচ্চিত্রটিতে। পাশাপাশি এতে তুলে ধরা হয় বিশ্বের সবচেয়ে ভাগ্যবিড়ম্বিত এ জনগোষ্ঠীর অসহায়ত্বের কথা। প্রসুন রহমানের গল্প ও পরিচালনায় বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়ার এ ডকু-ফিকশন চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেন সৈয়দ আশিক রহমান।
এ চলচ্চিত্রটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন রওনক হাসান, সায়রা আক্তার জাহান, সঙ্গীতা চৌধুরী, অঙ্কন চাকমা, জয়নাল জ্যাক, পামেলা কেচার, নাসির উদ্দিন প্রমুখ।
চলচ্চিত্রটি প্রদর্শনের আগে রোহিঙ্গাসহ বিশ্বের জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত শরণার্থীদের বিষয়ে ও চলচ্চিত্রটির প্রেক্ষাপট নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।
আলোচনা পর্বে অংশ নেন- জাতিসংঘে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত জার্গ লাউবার, কেনিয়ার উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত কোকি মুলি গ্রিগনন, ইউএনএইচসিআরের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজর অর্জুন জেইন, আরটিভির সিইও সৈয়দ আশিক রহমান, যুক্তরাষ্ট্রে চলচ্চিত্রটির পরিবেশক রাজ হামিদ এবং টিন বিউটি ইন্টারন্যাশনাল মিস ভারত ২০০৯ সুজান কচ।
মাসুদ বিন মোমেন তার বক্তব্যে রোহিঙ্গা বিষয়ে বাস্তব দৃশ্যপট তুলে ধরেন। তার বক্তব্যে উঠে আসে নারী শিশুসহ রোহিঙ্গাদের ওপর সংঘটিত অবর্ণনীয় সহিংসতার কথা।
তিনি বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয়দানের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদারতা ও মানবিকতার কথা তুলে ধরেন এবং তাদের নিজ ভূমিতে নিরাপত্তা ও মর্যাদার সঙ্গে স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর আহবানের পুনরুল্লেখ করেন।
মাসুদ বলেন, এ চলচ্চিত্রটি যেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুভূতিকেই প্রতিফলিত করছে।
জাতিসংঘে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত জার্গ লাউবার সুইজারল্যান্ডকে একটি অভিবাসনবান্ধব দেশ উল্লেখ করে নিয়মিত, নিয়মতান্ত্রিক ও নিরাপদ অভিবাসনের ক্ষেত্রে গৃহীত বৈশ্বিক অভিবাসন কম্প্যাক্টের বাস্তবায়ন এবং এ কম্প্যাক্টে শরণার্থী অধিকারের আরো বিষয় অন্তর্ভুক্ত করার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন। রোহিঙ্গাদের ক্ষেত্রে তার সরকার গৃহীত মানবিক সহযোগিতা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন তিনি।
কেনিয়ার উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত কোকি মুলি গ্রিগনন তার বক্তব্যেও গ্লোবাল মাইগ্রেশন কম্প্যাক্টের কথা উল্লেখ করেন।
ইউএনএইচসিআরের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজর অর্জুন জেইন বিশ্ব শরণার্থী পরিস্থিতি এবং এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।
সুজান কচ রোহিঙ্গা সঙ্কটের আদ্যপান্ত তুলে ধরেন। এ কিশোরীর সাবলীল ও হৃদয়স্পর্শী বর্ণনা সবারই দৃষ্টি কাড়ে। সুজান তার বক্তব্যে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি জোর আহবান জানান।
 
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com