চট্টগ্রামে পাঠাওয়ের হেলমেট বিতরণ

জাতীয় সড়ক দিবস উপলক্ষে সম্প্রতি যাত্রী ও চালকদের সড়ক নিরাপত্তার বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে পাঠাও ও এটুআইয়ের যৌথ উদ্যোগে সেফটি ফার্স্ট বিষয়ক একটি ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

আর সেই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার অন-ডিমান্ড ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম পাঠাও লিমিটেড চট্টগ্রামে স্থানীয় মোটরসাইকেল চালকদের মাঝে বিনামূল্যে কয়েক হাজার হেলমেট বিতরণ করে। যাত্রী ও চালকদের হেলমেট ব্যবহারে সচেতন করতেই পাঠাওয়ের এমন উদ্যোগ।

হেলমেট বিতরণের এই আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার আমির জাফর।

তিনি বলেন, বর্তমানে সড়কপথে মোটরযানের সংখ্যা, যাত্রী ও যানবাহনের গতি বৃদ্ধি পাওয়ায় সড়ক নিরাপত্তার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে সরকারের পাশাপাশি মোটরসাইকেল চালক, গাড়িচালক, পথচারী, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন জরুরি। নিজের নিরাপত্তা শুরু হোক নিজের সচেতনতার মাধ্যমে।

হেলমেট বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এসি ট্রাফিক (উওর) মিজানুর রহমান, পাঠাওয়ের প্রধান মার্কেটিং ম্যানেজার সায়েদা নাবিলা মাহাবুব, পাঠায়ের চট্টগ্রাম ও সিলেটের অপারেশনস প্রধান ইশফাক চৌধুরী। 

সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে পাঠাও। যাত্রী ও চালকদের অধিক নিরাপত্তার জন্য পাঠাও ২৬ হাজারের বেশি হেলমেট বিতরণ করেছে। শিগগিরই সিলেটেও হেলমেট বিতরণের কার্যক্রম শুরু করা হবে। পাঠাও সর্বদা তার রাইডার ও ব্যবহারকারীদের সুরক্ষাকে প্রথম অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। মোটরসাইকেল ও গাড়ি চালকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বতস্ফূর্তভাবে কাজ করে চলেছে পাঠাও।

পাঠাও সর্ম্পকে:

পাঠাও বাংলাদেশের বৃহত্তম রাইড শেয়ারিং, ই-কমার্স ও ফুড ডেলিভারি সেবা প্রদানকারী ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম। দেশব্যাপী হাজার হাজার মানুষের জন্য নতুন কর্মসংস্থান তৈরির পাশাপাশি সামগ্রিকভাবে জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধিতে পাঠাও কার্যকরী ভূমিকা রেখে চলেছে। দেশের বৃহৎ অবকাঠামো সমস্যার প্রেক্ষিতে পাঠাও একটি বাস্তব সমাধানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। 

নিজেদেরকে দেশের সর্ববৃহৎ ই-কমার্স ডেলিভারি কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠার পর পাঠাও যাতায়াত সেবায় নতুন দিগন্ত উন্মোচিত করেছে। পাঠাও মোটরবাইক, গাড়ির নানামুখী ব্যবহারের পর এবার ফুড সার্ভিসের মধ্য দিয়ে প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে বাংলাদেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। 

পাঠাও বাংলাদেশ সরকারের রাইড শেয়ারিং নীতিমালা ২০১৮ অনুমোদিত প্রথম রাইড-শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম। বর্তমানে পাঠাও দৈনন্দিন জীবনের চাহিদা মেটাতে ডিজিটাল লাইফ স্টাইল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করে চলেছে।

মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh