বিটিআরসিকে একহাজার কোটি টাকা দিতে রাজি গ্রামীণফোন

অবশেষে উচ্চ আদালতের নির্দেশ মেনে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) এক হাজার কোটি টাকা দিতে রাজি হয়েছে গ্রামীণফোন।

প্রতিষ্ঠানটির হেড অব এক্সটার্নাল কমিউনিকেশন মো. হাসান শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আপিল বিভাগের আদেশের প্রেক্ষিতে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি বিটিআরসিকে তার পাওনা একহাজার কোটি টাকা পরিশোধ করবে গ্রামীণফোন। গ্রামীণফোন বাংলাদেশের আইনী ব্যবস্থা, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশকে শ্রদ্ধা করে এবং সেই সাথে বিটিআরসির অব্যাহত চাপ থেকে রক্ষা পেতে তারা টাকা দিয়ে দেবে।

গ্রামীণফোন জানায়, তাদের কার্যক্রমকে সীমিত করতে বিটিআরসি গ্রামীণফোনে প্রশাসক নিয়োগ দেয়ার পদক্ষেপ গ্রহণ করাসহ নানা পদক্ষেপ নিয়েছে যা ব্যবসায়ীক ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

এর আগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের নিরীক্ষা দাবির সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে ১০০০ কোটি টাকা সোমবারের মধ্যে পরিশোধ করতে গ্রামীণফোনকে নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ সাত বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন। বাকি টাকা পরিশোধের বিষয়ে সোমবার পরবর্তী আদেশ দেয়া হবে বলেও জানান আদালত। 

বিটিআরসির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মাহবুবে আলম ও খন্দকার রেজা-ই-রাকিব। গ্রামীণফোনের পক্ষে শুনানি করেন এ এম আমিন উদ্দিন ও মোহাম্মদ মেহেদী হাসান চৌধুরী।

বিটিআরসির পাওনা সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে একহাজার কোটি টাকা আগামী চারদিনের মধ্যে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষকে পরিশোধ করতে আপিল বিভাগের নির্দেশের পর বৃহস্পতিবার বিটিআরসি জানায়, এই সময়ের মধ্যে পাওনা পরিশোধ না করলে গ্রামীণফোনে প্রশাসক নিয়োগ করা হবে।

আপিল বিভাগ গত ২৪ নভেম্বর গ্রামীণফোনকে দুই হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করতে নির্দেশ দিয়েছিলো। সেজন্য তাদের দেয়া হয়েছিলো তিন মাস সময়, যা ২৪ ফেব্রুয়ারি শেষ হচ্ছে। ওই সময় শেষ হওয়ার আগে বিটিআরসিকে ১০০ কোটি টাকা দিয়ে আলোচনা চালু রাখার প্রস্তাব দিয়েছিলো গ্রামীণফোন। কিন্তু নিয়ন্ত্রক সংস্থা তাতে রাজি হয়নি। সে বিষয়টি তুলে ধরে বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে রিভিউ শুনানিতে ছয় মাসের কিস্তিতে ওই দুই হাজার কোটি টাকা পরিশোধের অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু শুনানি শেষে আদালত সোমবারের মধ্যে এক হাজার কোটি টাকা পরিশোধের নির্দেশ দেয়।

মন্তব্য করুন

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh