বরিশালে ব্যবসায়ীকে শিকলে বেধে নির্যাতনের অভিযোগ

বরিশালে এক গাছ ব্যবসায়ীকে শিকলে বেঁধে নির্যাতনের পরে লক্ষাধিক টাকা ছিনতাই’র অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় ওই ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে বরিশাল সদর উপজেলার রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডস্থ পল্লী বাংলা স্কুল সংলগ্ন আক্কেল আলী’র বাড়ির সামনে এই ঘটনা ঘটে।

আহত গাছ ব্যবসায়ী মো. হুমায়ুন মাঝি (৪০) একই ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত শফিক উদ্দিনের ছেলে।

নির্যাতনের শিকার হুমায়ুন মাঝির স্ত্রী শিমু বেগম জানান, ‘পাশ্ববর্তী গ্রামের মো. হানিফ খানের গাছ কেনার জন্য সকাল ১০টার দিকে এক লাখ ১০ হাজার টাকা নিয়ে বের হন হুমায়ুন মাঝি। এরপর বেলা সাড়ে ১টার দিকে খবর পান তার স্বামীকে মারধর করে আক্কেল আলী’র বাড়ি সংলগ্ন একটি বাগানে গাছের শিকড়ের সাথে দুই পা বেধে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখেছে। খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে যান এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে খবর দেন।

এদিকে খবর পেয়ে রায়পাশাপা-কড়াপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান খোকন ও এয়ারপোর্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুর রহমান মুকুল সহ পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌছে গাছ ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।

বরিশাল মেট্রোপলিটন এয়ারপোর্ট থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) এম জাহিদ দিন আলম বলেন, ‘একটি বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে আমাদের পুলিশ সদস্যরা কড়াপুরের ওই এলাকায় যায়। সেখানে গিয়ে ওই ব্যক্তিকে শিকল দিয়ে গাছের সাথে বাধা অবস্থায় দেখতে পায়।

তিনি বলেন, ‘মুলত যে মেয়র বিয়ের আয়োজন চলছিলো সেই মেয়ের সাথে অন্য কোন ছেলের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। গাছ ব্যবসায়ী বিয়ে বাড়িতে যাবার পরে মেয়ের পরিবারের লেকেরা ভাবে ওই মেয়ের প্রেমিকের লোক হতে পারে। এজন্য তাকে বাড়ি থেকে চলে যেতে বলে। সে বাড়ি চলেও যায়। কিন্তু কিছু সময় পরে বিয়ে বাড়ির কিছু লোক তাকে মারধর করে গাছের সাথে শিকল দিয়ে বেধে রাখে। মুলত ভুল বোঝাবুঝির মাধ্যমেই এমনটি হয়েছে বলে আমাদের ধারনা।

পরে গাছ ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে গাছ ব্যবসায়ীর কোন টাকা ছিনতাই হয়েছে বলে আমাদের জানায়নি। এ নিয়ে নির্যাতনের শিকার ওই ব্যক্তি মামলা করলে আমরা প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।

মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2019 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh